আমার ক্লিভেজ অবধি পৌঁছাতে হলে আগে আমার মন ছুঁতে হবে

আমার ক্লিভেজ অবধি পৌঁছাতে হলে আগে আমার মন ছুঁতে হবে: শ্রীলেখা

জাতীয় খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমার ক্লিভেজ অবধি পৌঁছাতে হলে আগে আমার মন ছুঁতে হবে

ওপার বাংলার অন্যতম আবেদনময়ী অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র বলেছেন, ‘অনেকেই আমাকে নিয়ে আজেবাজে কথা বলে। আমার কোন ধরনের পোশাক পরা উচিৎ বা উচিৎ নয়, সে বিষয়ে পরামর্শও দেয়। কিন্তু তুমি কে ভাই? আমার শরীর। আমার ক্লিভেজ আমি দেখাব। তবে আমার ক্লিভেজ অবধি পৌঁছাতে হলে আগে আমার মন ছুঁতে হবে।’

সম্প্রতি ফেসবুকে নিজের একটি ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, ‘আগে আমার চোখে হারাও, ক্লিভেজ দেখারও সময় পাবে।’ ওপার বাংলার অন্যতম আবেদনময়ী অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র, যেখানে তার ক্লিভেজ স্পষ্ট হয়ে রয়েছে।

ওই ছবি সম্পর্কে একটি সংবাদমাধ্যমকে নায়িকা বলেছেন, ‘ছবিটিতে আমার ক্লিভেজ বেরিয়ে রয়েছে। কিন্তু আমার প্রশ্ন, ছবি তোলার জন্য ক্লিভেজ ঢাকতে হবে কেন! আগে আমার চোখের দিকে তাকাও। তারপর আমার ক্লিভেজের দিকে তাকাবে।’

নারীর সৌন্দর্যকে উপভোগ করার মধ্যে কোনো অন্যায় দেখেন না শ্রীলেখা। কিন্তু সেই সৌন্দর্য দেখার নামে ‘নোংরামি’ বরদস্ত করতে রাজি নন তিনি। তার মতে, শালীন-অশালীন নির্ভর করে নারীপুরুষ নির্বিশেষে মানসিকতার উপর। যে খোলামেলা পেশাক পরে তাকে যেমন ‘চরিত্রহীন’ বলা হয়, তেমনই যে শাড়ি পরে তাকেও কুকথা শুনতে হয়।

যৌনতা নিয়ে বরাবরই অকপট শ্রীলেখা। তবে বাস্তবের ছবিটাও তার অজানা নয়। সেই ছবিতে যদিও কোনো রকম পরিবর্তন আনতে চাননি তিনি। অভিনেত্রীর কথায়, ‘জানি অনেক পুরুষ আমাকে নিয়ে ফ্যান্টাসাইজ করেন। এই বয়সেও আমি যদি কারও ফ্যান্টাসির বিষয় হই, তা তো ভালো লাগার বিষয়।’

কাজের ক্ষেত্রে জানুয়ারীতে শুরু হতে চলেছে শ্রীলেখার শর্ট ফিল্ম ‘বেটার হাফ’-এর শুটিং। অভিনয়ের পাশাপাশি এটির পরিচালকও তিনি। আবার চিত্রনাট্যও তার লেখা। ইদানীং তার মনে হয়, টলিউড ইন্ডাস্ট্রি আর তাকে কাজ দেবে না। তাই নিজেই নিজেকে কাজ দেয়ার কথা ভাবছেন। সূথ-অনলাইন।  ভিজিট করুন

বছর জুড়েই আলোচনায় মিথিলা