কলকাতার কম্পাউন্ডার নরেন দত্ত'র বাড়ি

কলকাতার কম্পাউন্ডার নরেন দত্ত’র বাড়ি

কলাম ও ফিচার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
কলকাতার কম্পাউন্ডার নরেন দত্ত'র বাড়ি
কলকাতার ফুটপাথ ঘেঁষে হাঁটলে দেখা মেলে কত কত ইতিহাস। ইট-কাঠের পাঁজর বেরিয়ে আছে যেসব দেওয়ালে, মন চায় হাত রাখি, ছুঁয়ে দেখি। এমন কত কত বাড়িরই তো সন্ধান মেলে না। সামনে থেকে দেখলে মনে হয়, এ আর এমন কী! কিন্তু ইতিহাস জানান দেয়, এটাই এই কলকেতার বৈশিষ্ট্য।
উত্তর কলকাতার কর্নওয়ালিস স্ট্রিট চত্বর। ব্যস্ত রাস্তা। ট্রামলাইন চলে গেছে টানা শ্যামবাজারের দিকে। ওই দিকে নেমে দু-চার পা হাঁটলেই সিমলে পাড়ার নরেন দত্ত’দের বাড়ির সিং দরজা। তারপর আরও দু’পা, পথের মধ্যে একটি গাড়ি বারান্দা বাড়ি। যার নিচে গুটিকয়েক ফুটপাথ বাসীর অস্থায়ী আস্তানা। এমন বাড়িরই জীর্ণ রং ঘষা দেওয়ালের গায়ে আবছা হয়ে যাওয়া সিমেন্ট রিলিফ অক্ষরের একটি নাম নির্দেশ। যা প্রাথমিকভাবে বাড়িটির পরিচয় দেয়। ওতে লেখা বাংলা হরফে ‘বসাক্‌স্ পুয়োর ফার্মেসী’, তার তলায় লেখা ‘স্থাপিত ১৯১৯ সাল।’
গেটের পাশে বাড়ির কোনও এক ডাক্তার সদস্যের নাম ফলক। জীর্ণতা বাড়িটিকে গ্রাস করেছে সর্বাগ্রে। কিন্তু তার আড়ালের ইতিহাসটি জীর্ণ নয়।
ইংরেজরা কলকাতায় আসার পর প্রথমে ডাক্তার নিয়ে আসতেন সেদেশ থেকে। যাদের সার্ভিস পরিচয় হল ‘ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল সার্ভিস’-এর সদস্য ডাক্তার। ১৮২২ খ্রিষ্টাব্দের পর তাঁরা বুঝলেন এত এত ডাক্তার বিলেত থেকে আনা সম্ভব নয়। তাই ঠিক করা হল কুড়িজন নেটিভ ডাক্তারকে নেওয়া হবে।
লর্ড বেন্টিঙ্ক-এর ভাবনার ফসল হিসেবে গড়ে উঠল মেডিক্যাল কলেজটি। ইউরোপীয় চিকিৎসা পদ্ধতির প্রয়োগ শেখানো শুরু হল এদেশের শিক্ষার্থীদের। ডাক্তারদের সহায়ক হিসেবে উঠে এল আরেকটি পেশা যাঁদের বলা হয় কম্পাউন্ডার। ফার্মাসি বিদ্যায় দক্ষ এই মানুষগুলি সেদিন বিলিতি চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগে দক্ষ ডাক্তারদের যোগ্য সহকারি।
ওষুধের কম্পোজিশন, মাপজোক, প্রয়োগ পদ্ধতি, মিক্সচার তৈরির নিয়মকানুন, প্রয়োগের ঘড়ি নির্ধারণ সবই সেদিন ডাক্তারদের মতোই করে চলেছেন কম্পাউন্ডাররা। এই পেশার মানুষদের আজ আর দেখা মেলে না। ধীরে ধীরে দেখা গেল কলকাতার গরিব মানুষেরা অর্থের অভাবে যদি ডাক্তার অবধি পৌঁছাতে নাও পারতেন, তবে দ্বারস্থ হতেন কম্পাউন্ডারদের। বিশ্বাস ছিল কম্পাউন্ডারবাবুর দুটো পুরিয়াই তার রোগের উপশম ঘটাবে।
কলকাতার কিছু মানুষ সেদিন বুঝলেন যে, কলকাতার গরিব মানুষও ধীরে ধীরে বিলিতি চিকিৎসার দিকে ঝুঁকছে। কিন্তু তাদের সেই সামর্থ্য নেই। এরকম অবস্থাতেই বেশ কিছু বড়ো বাড়ির দরদি সন্তানরা কলকাতার বুকে খুলে বসলেন ‘পুয়োর ফার্মেসী’। অন্তত যেখান থেকে রোগ বুঝে মিলবে ইউরোপীয় পদ্ধতির প্রয়োগিক চিকিৎসা ও ওষুধ।
সে রকমেরই একটি হল এই ‘বসাক্‌স্ পুয়োর ফার্মেসী।’ এ যেন জীর্ণ দেওয়ালের গায়ে দেশ সেবার অঙ্গীকার। একটি নাম ফলকে এক নয়া মুক্তির ইতিহাস। চোখে ভেসে ওঠে ধুতি, শার্ট পড়া স্বদেশি কম্পাউন্ডারদের আবছা গৌরবের ছবি। -সাজেদ রহমান, সিনিয়র সাংবাদিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.