কেশবপুরের ১৫ ক্লিনিক ও প্যাথলজিতে অভিযান। বন্ধ করা হয়েছে ৫ ক্লিনিকের প্যাথলজী বিভাগ

স্বাস্থ্য
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

কেশবপুরে ক্লিনিক ও প্যাথলজি প্রতিষ্ঠানের বৈধতা ও  স্বাস্থ্য সেবায় মান যাচায়ে শনিবার সকালে যশোর সিভিল সার্জনের নির্দেশে কেশবপুরে ৬টি ক্লিনিং ও ১০টি প্যাথলজিতে স্বাস্থ্য বিভাগ অভিযান পরিচালনা করেছে। 

অভিযান পরিচালনা করেন যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মীর আবু মাউদ। এ সময় তার সাথে ছিলেন, যশোর সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার নাসিম ফেরদৌস, অফিস সহকারী পার্থ প্রতীন লাহেরী, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন, আর এম ও ডাক্তার জাহিদুর রহমান ও কেশবপুর থানার এস আই আশরাফুল ইসলামসহ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স। 

সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত একটানা এই অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় ক্লিনিকের যন্ত্রপাতি ও কাগজপত্রে ঠিক না থাকার অভিযোগে কেশবপুর শহরের আরিয়ান, হিরা, সাতবাড়িয়া ডিজিট্যাল ও কেশবপুর মার্তৃমঙ্গল ক্লিনিকের প্যাথলজি ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার সার্বিক কার্য্যক্রম বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

 

এছাড়া অভিযানকালে কেশবপুর হেল্থ কেয়ার হসপিটল, মর্ডান হাসপাতাল, কপোতাক্ষ সার্জিক্যাল, মাইকেল ক্লিনিক, মাতৃমঙ্গল ক্লিনিক ও কেশবপুর সার্জিক্যাল ক্লিনিক ক্রিস্টাল, মনোয়ারা, রাইজিং, হোসেন, পেয়ারলেস, রাইজিং সেন্টারের মালিকদেরকে ত্রুটিপূর্ন যন্ত্রপাতি ও প্রতিষ্ঠানের সকল কাগজপত্র যথা সময়ে ঠিক করার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। যথাসময়ে তা না করলে আগামীতে যে কোন সময় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানা গেছে।

অভিযান পরিচালনাকারী যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মীর আবু মাউদ বলেন, স্বাস্থ্য দপ্তরের অধীনে দেশের সকল ক্লিনিক ও প্যাথলজি প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্য সেবার মান, নিয়মিত ডাক্তার (এমবিবিএস), ডিপ্লোমাধারী নার্স ও টেকনিশনদের কাগজ পত্র ঠিক আছে কিনা তা নিয়ে যাচাই-বাচাই শুরু হয়েছে। কেশবপুরে এই অভিযান তারই একটি অংশ। ভবিষ্যতে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। কবির/আজিজুর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.