কেশবপুরে আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি শোক দিবসের কর্মসূচী পালন

জাতীয় খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব সংবাদদাতা, কেশবপুর, ২৭ আগস্ট।
জাতীয় শোক দিবসকে কেন্দ্র করে কেশবপুর আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের মাসব্যাপী পাল্টাপাল্টি শোক দিবসে কর্মসুচী পালন চলছে। অনেকে এটাকে প্রতিযোগিতার লড়াই বলেও মন্তব্য করছেন। স্থানীয় সাংসদ ইসমাত আরা সাদেক বরাবর বলে আসছেন সকলেই একই দলের। ভেদাভেদ ভুলে সকলকে আওয়ামীলীগের এক ছাতার তলে থাকার আহবান জানিয়ে আসলেও দীর্ঘদিনের চলে আসা দলীয় কোন্দল কিছুতেই মিটছে না। নির্বাচন পেরিয়ে প্রাকাশ্য সেই দ্বন্দ্ব এখন শোক দিবসে ভর করেছে। গত ১৫ আগস্ট কেশবপুরে দু’গ্রুপ পৃথক পৃথক শোক দিবসের অনুষ্ঠান পালন করেছে। এরপর থেকে প্রতিটি ইউনিয়নে পালন করা হচ্ছে আওয়ামীলীগের পাল্টাপাল্টি শোক দিবসের কর্মসূচী।
কেশবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ বহুকাল আগে থেকে দুভাগে বিভক্ত। প্রতিটি নির্বাচনে উভয় গ্রুপ তাদের নিজ নিজ অবস্থান ধরে রাখার চেষ্টায় মরিয়া হয়ে উঠে। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১৫ আগষ্ট শোক দিবসের দু’গ্রুপ পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী পালন করেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন উপলক্ষে শুধু উপজেলাতে সীমাবদ্ধ নয় তারা  প্রতিটি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপ আলাদা আলাদা ভাবে পালন করছে ১৫ আগস্টটের শোক দিবস। সাবেক শিক্ষামন্ত্রী মরহুম এ এস এইচকে সাদেকের নিরলস প্রচেষ্ঠার ফসল কেশবপুরের শক্তিশালী সংগঠন আওয়ামীলীগ আজ ভাঙ্গনের পথে বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন। দীর্ঘকালের চলমান গ্রুপিংয়ের কারনে কেশবপুরে বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিকেরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। যার প্রভাব ফেলেছে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে আওয়ামী নেতাকর্মীদের মধ্যে। শীর্ষ নেতাদের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলছে তৃনমূলের সাধারন নেতাকর্মীরা। এর ফলে দিনকে দিন দূর্বল হয়ে পড়ছে আওয়ামীলীগের শক্ত সংগঠন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমীন, সহসভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমীর হোসেন, সাধারন সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা ও পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বের গ্রুপ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে তাদের গ্রুপের নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিদিন পালন করছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া, আলোচনা সভার অনুষ্ঠান।
অপর দিকে কেশবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, জেলা পরিষদের সদস্য হাসান সাদেক, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা সাদেক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিকী বিপুল, চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র বিশ্বাস শহিদুজ্জামান শহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক, খন্দকার আব্দুল আজিজসহ আর একটি গ্রুপ তাদের অনুসারীরা প্রতিদিন বিভিন্ন ইউনিয়নে শোক দিবস উপলক্ষে কর্মসূচী পালন করছেন।
এ ব্যাপারে কেশবপুরের বর্তমান সাংসদ ও সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক দলের ভেতর কোন গ্রুপিং নেই দাবি করে বলেন, আমি বরাবরই বলে আসছি, আমরা সকলেই আওয়ামী লীগের লোক। আমাদের মধ্যে মতপার্থক্য থাকতেই পারে তবে সকল ভেদাভেদ ভুলে সকলকে মিলে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।
কবির হোসেন
কেশবপুর
০১৭১১-২৫০৩৫৬।

Leave a Reply

Your email address will not be published.