কেশবপুরে পৈত্রিক সম্পত্তি জবরদখলের পর রাস্তায় বেড়া

কেশবপুরে পৈত্রিক সম্পত্তি জবরদখলের পর রাস্তায় বেড়া

দেশের খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কেশবপুরে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে পৈত্রিক সম্পত্তি জবর দখলের পর যাতায়াতের রাস্তা বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। যে কারনে গত ৭ দিন ধরে ৮টি পরিবার অবরুদ্ধবস্থায়  জীবন-যাপন করছে। এ ঘটনায় সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

উপজেলার টিটাবাজিতপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম তার অভিযোগে উল্লেখ করেন,তার পিতা মোঃ সরোয়ার হোসেন শেখ প্রায় ৫০ বছর ধরে তার পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত কেশবপুর থানাধিন ৫৮ নং টিটাবাজিতপুর মৌজার ৪৩০ খতিয়ানের ১৫২৮ ও ১৫৫৩ হাল দাগের ৪৭ শতক জমি ভোগ দখল করে আসছেন।

প্রতিপক্ষ জিল্লুর রহমান গং প্রায় সময় তাদের দখলীয় সম্পত্তি জবর দখলের হুমকী দিয়ে আসছিল।  স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে গত ০৩ আগষ্ট উভয়পক্ষের আমিন দিয়ে উক্ত জমির মাপজোপ শুরু হয়।

উপস্থিত গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সিদ্ধান্ত অমান্য করে সম্পত্তি ভাগবাটওয়ারার আগেই প্রতিপক্ষ জিল্লুর রহমান, মফিজুল ইসলাম, মোসলেম শেখ,রায়হান, আজগর আলী, আয়ুব আলী, ইউনুস ও ইসলাম শেখ সংঘবদ্ধ হয়ে তার পিতার পৈত্রিক উক্ত দাগের ৪৭ শতক জমির মধ্য থেকে ১৫ শতক জমি বাঁশের বেড়া দিয়ে জোর করে ঘিরে দেয়। ওই জমিতে থাকা বাঁশের ঝাড় ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছের ডালপালা  কেটে ও,ভেঙ্গে নষ্ট করে প্রায় ৫০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে।

পরবর্তিতে গত ০৮ আগষ্ট সকালে উক্ত জিল্লু গং তাদের জমিতে থাকা বড় বড় শিশু, মেহেগনি ও জাম গাছ কেটে বিক্রি করার চেষ্টা করে । এ সময় তারা বাঁধা ও প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের পরিবারকে প্রাননাশের হুমকী প্রদান করে এবং তাদের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিরে দেয়। যার ফলে সিরাজুল ইসলামসহ ৮টি পরিবার গত ২ দিন ধরে অবরুদ্ধ জীবন যাপন করছেন।

অভিযোগে বাদী সিরাজুল ইসলাম জানান, যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় বর্তমানে তিনিসহ তাদের ৮টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে আছে। এমনকি জীবনের নিরাপত্তার কথা ভেবে তাদের পরিবার এখন পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। অব্যাহত হুমকীর কারনে তাদের ৮ পরিবারের পুরুষরা গত ৫ দিন ধরে বাড়ী ছাড়া রয়েছেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জিল্লুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, উভয়পক্ষের আমিন দিয়ে জমি মাপজোপের পর ১৫ শতক জমি তাদের প্রাপ্য হয়। উক্ত জমি তারা তাদের দখলে নিয়েছেন । তাছাড়া তাদের প্রাপ্য জমি ফেরৎ দিবে না বলে সিরাজুল গং একের পর এক তাদের বিরুদ্ধে থানাসহ বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা অভিযোগ করছে। — আজিজুর রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published.