কেশবপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র দ্বিমুখী লড়াই

কেশবপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র দ্বিমুখী লড়াই

জাতীয় খবর দেশের খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কেশবপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র দ্বিমুখী লড়াই

দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে নির্বাচনী উত্তাপ। কেশবপুর পৌরসভার নির্বাচন প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়ায় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কেউ চেয়ার ধরে রাখতে আবার কেউ হারানো চেয়ার ফিরে পেতে মরিয়া।

আগামী রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) পঞ্চম ধাপে কেশবপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে ব্যালটে নয় এবার লড়াই হবে ইভিএমে। এই প্রথমবারের মতো কেশবপুরে পৌরসভার নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ফলে প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন।

কেশবপুর পৌর নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত করতে খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা গত সোমবার কেশবপুর পরিদর্শন করেছেন। তিনি নির্বাচনের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর সাথে মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কেশবপুর পৌর নির্বাচন শান্তিপূর্ন, অবাধ ও সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠিত করতে সকল ধরণের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের ১০টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলবে। বর্তমানে কেশবপুর পৌরসভার ভোটার সংখ্যা ২০ হাজার ৭শ’৭৫ জন। এর মধ্যে ১০ হাজার ২শ’৮ জন পুরুষ ও ১০ হাজার ৫শ’৬৭ জন মহিলা ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে মেয়রপদে ৩ জন এবং ৩৮ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ১৩ জন মহিলা কাউন্সিলরসহ ৫৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। পৌরসভার মেয়র পদে যে তিন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন তারা হলেন : আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (নৌকা), বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্জ্ব আব্দুস সামাদ বিশ্বাস (ধানের শীষ) এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রাার্থী আব্দুল কাদের (হাতপাখা)।

বর্তমান মেয়র ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রফিকুল ইসলাম তাঁর চেয়ার ধরে রাখতে সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা তুলে ধরে জনগনে মনজয় করতে প্রাণপন চেষ্টা করছেন। দিন রাত গণসংযোগ, উঠান বৈঠক, পথ সভার মাধ্যমে ব্যস্ত সময় পার করছেন। নৌকা প্রতীকের কর্মী সমর্থকদের নির্বাচনী প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠে পৌর এলাকা। ভোট চাওয়ার সময় তারা তুলে ধরছেন কেশবপুর পৌরসভায় গত পাঁচ বছরের উন্নয়নের চিত্র। পুরুষদের পাশাপাশি মহিলা নেত্রীরাও তাদের কর্মীদের নিয়ে ছুটেছে ভোটারদের কাছে।

অপর দিকে বিএনপি তাদের সর্বশক্তি দিয়ে হারানো মেয়র পদটি ফিরে পেতে চেষ্টা করছে। ধানের শীষের প্রার্থী সাবেক মেয়র আব্দুস সামাদ বিশ্বাস প্রচার-প্রচারণা থেমে নেই। সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে পৌর এলাকার ভোটারদের বাড়ি বাড়ি চষে বেড়িয়েছেন।

তবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আব্দুল কাদের (হাতপাখা) প্রতিকের মাইকিং প্রচারণা চললেও তার পক্ষে তেমন কোনো গণসংযোগ, মত বিনিময় ও নানা নির্বাচনী কার্যক্রম করা হয়নি। পৌর এলাকার অনেকেই জানান, তিনিও নির্বাচনী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

কেশবপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার বজলুর রশিদ বলেন, পঞ্চম ধাপের এ নির্বাচনে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে। অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পৌরসভা নির্বাচন সম্পন্ন হবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের সুখবর জানাতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী