চাঁদা না দেওয়ায় স্কুল শিক্ষক নির্যাতন করার ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন

দেশের খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি।। কেশবপুরে এক ইউপি সদস্যের অব্যাহত নির্যাতনের শিকার হয়ে এক স্কুল শিক্ষক সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

শুক্রবার সকালে উপজেলার ব্রান্মনডাঙ্গা গ্রামের স্কুল শিক্ষক গোলাম সরোয়ার হোসেন তার পরিবার নিয়ে স্বাধীনভাবে বসবাস করার দাবিতে শুক্রবার সাড়ে ১১ টায় কেশবপুর প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন করেন।

কেশববপুর প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে নির্যাতিত গোলাম সরোয়ার হোসেন বলেন, পাঁজিয়া ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তার বাড়ি এলাকার ত্রাস আব্দুল হালিম সানা একের পর এক জীবন নাশের হুমকি দেখিয়ে তার নিকট থেকে কখনও চাঁদা আদায় করছে। আবার কখনও চাঁদার টাকা দাবি করছে।

সর্বশেষ গত ২২ সেপ্টেম্বর শিক্ষকের বাড়িতে প্রবেশ করে ইউপি হালিম সানা ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। ইতিপূর্বে ২২-০৩-২০ তারিখে আব্দুল হালিম তাদের বাড়ি থেকে জোর করে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়ে আসে। বাকি ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ না করলে তাদের পরিবারের সকলকে হত্যা করার হুমকি দেয়।

এলাকার এই ত্রাস ইউপি সদস্য হালিম ২০১৫ সালে অস্ত্র দেখিয়ে শিক্ষক সরোয়ারের নিকট থেকে একটি মটরসাইকেল ছিনতাই করে নেয়।

২০০১ সালে হালিমের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী শিক্ষকের বাড়িতে ঢুকে ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে ছিল। এ ঘটনায় থানায় একটি ডায়েরি করা হয়েছিল।

ত্রাস আব্দুল হালিম পাঁজিয়া ব্রাক অফিসে ডাকাতি মামলায় পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল বলে সাংবাদিক সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়।

ইউপি সদস্য হালিম সানা রাস্তায় বা বিভিন্ন স্থানে শিক্ষকের স্ত্রী ও কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে দেখা পেলে বিভিন্ন ধরনের অশালীল কথা বলে হুমকি দিয়ে থাকে। নিরুপায় শিক্ষক গোলাম সরোয়ার বাদি হয়ে ২৩-০৯-২০ তাং যশোর আদালতে হালিমের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন । যার মামলা নং-সি,আর- ২৩১/২০। বিজ্ঞ আদালত ওই মামলা তদন্তের জন্যে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট পুলিশ ব্যুরো ইনভেষ্টিগেশন (পি,বি, আই) যশোর কে দায়িত্ব দেন। এই মামলার সংবাদ পেয়ে ত্রাস ইউপি সদস্য সরোয়ারের পরিবারকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য অব্যাহত হুমকি দিচ্ছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

এই মালার ঘটনায় আরও ক্ষুব্দ হয়ে ২৫-০৯-২০ তাং সকালে ত্রাস হালিম সানা শিক্ষক সরোয়ারের বাড়ির পাশে একটি রাইস মিল ঘরে শিক্ষককে পেয়ে হুমকি দেয়, মামলা তুলে না আনলে পাঁজিয়া বাজারে তুইসহ তোর পরিবারের সদস্যদের হাত পা ভেঙ্গে দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে অভিযুক্ত ইউপি আব্দুল হালিম সানা জানান, আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ সত্য নয়। এমনকি এসব অভিযোগের একটিরও প্রমান করার ক্ষমতা ওদের নেই।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষক সরোয়ারের স্ত্রী তহমিনা বেগম, কলেজ পড়–য়া কন্যা রাবেয়া সুলতানা ও ছেলে ফয়সাল শাহিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.