ফটোগ্রাফি

গ্যালারী
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ধারালো হলুদ-কমলাটে ঠোঁটে। দু’পাশে উঁকি মারছে এক জোড়া চোখ। তীক্ষ্ণ তার নজর। শিকার ধরার লক্ষ্যে নিবিষ্ট সে। দু’পাশে বিশাল ডানা মেলে এ বার সে ডুব দেবে জলে। ছোঁ মেরে তুলে আনবে বহুক্ষণ ধরে তাক করা শিকার। এমন পরিস্থিতিতে ঈগলকে ফ্রেমবন্দি করতে চান বিশ্বের তাবড় ফটোগ্রাফাররা। ঠিক যে মুহূর্তে ঈগলের ডানা জল ছোঁবে তখনই লেন্স বন্দি হবে পাখিটি। শিকারের আগের মুহূর্তে কতটা সতর্ক থাকে ঈগলরা সেটাই ধরা পড়বে ফটোগ্রাফারের ক্যামেরায়।

এমন ছবি তুলতে তো সকলেই চান। কিন্তু পারেন ক’জন? বহু সাধ্যসাধনার পরেও নিখুঁত মুহূর্তে ফ্রেমে ধরা দেয় না। তবে কানাডিয়ান ফটোগ্রাফার স্টিভ বায়রো পেরেছেন। আর তাঁর তোলা এই ছবিই এখন নেট দুনিয়ার সেনসেশন। তারিফ করছেন সকলেই। একবাক্যে প্রায় সকলেই স্বীকার করে নিয়েছেন, এমন ছবি দেখে তাঁরা হতবাক হয়ে গিয়েছে। এত নিখুঁত ভাবে কী ভাবে মুহূর্ত বন্দি করলেন স্টিভ, সেটাই জানতে চেয়েছেন ফটোগ্রাফারের গুণমুগ্ধরা। দু’পাশে বিশাল ডানা ছড়ানো ঈগলের ছায়াও পড়েছে জলের উপর। সেই ছায়াকেও নিজের ক্যামেরায় নিখুঁত ভাবে বন্দি করেছেন স্টিভ। ঠিক যেন পারফেক্ট আর্চ শেপ।

সিটিভি-র রিপোর্ট অনুযায়ী এ বছর মে মাসের শুরুর দিকে কানাডাতেই এই ছবি তুলেছেন স্টিভ। ১০ বছর ধরে ‘অ্যামেচার ফটোগ্রাফি’ করছেন এই কানাডিয়ান ফটোগ্রাফার। তাই কখন কী ভাবে এমন মুহূর্ত লেন্সবন্দি করতে হবে তা ভালোই জানেন স্টিভ। তাঁর কথায়, “বছর খানেক আগেও একবার ঈগলের শিকারের আগের এমন মুহূর্ত ক্যামেরায় ধরতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পারিনি। সে বার ফটো তোলার আগেই বুঝেছিলাম আমার পজিশন ঠিক নেই। যা চাইছি সেই ছবি তুলতে পারব না।” তবে চলতি বছর নিজের অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতার উপর বিশ্বাস ছিল স্টিভের। তিনি জানিয়েছেন, “এক্কেবারে জলের পাশেই ওঁৎ পেতে ক্যামেরা নিয়ে বসেছিলাম আমি। তারপর ঈগলটা আসতেই জলের ধারে একটি পাথরে ভর দিয়ে প্রায় শুয়ে পড়ে ছবিটা তুলেছি।” স্টিভ জানিয়েছেন এই একটা ফ্রেম তোলার জন্য দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হয়েছে তাঁকে। তবে তিনি ছিলেন নাছোড়। লক্ষ্য নিয়েই ময়দানে নেমেছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল একটাই, যে ভাবেই হোক তাক লাগার মতো একটা ছবি তুলতেই হবে। শেষ পর্যন্ত অনেকদিনের পরিশ্রমের ফল স্টিভ পেয়েছেন। নিজের কাজের প্রতি তাঁর নিষ্ঠা এবং মনযোগের জন্যই ফ্রেমবন্দি হয়েছে এমন ছবি। নেটিজেনদের থেকে প্রশংসা পেয়েদারুণ খুশি স্টিভ নিজেও। বলছেন, “সকলের ভালো লেগেছে এটাই আমার পরম পাওয়া। সকলের ভালোবাসা পেয়ে আমি অভিভূত।”
সূত্র-ইন্টারনেট

Leave a Reply

Your email address will not be published.