ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ও বাংলাদেশ

জাতীয় খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যুগশ্রেষ্ঠ মহামানব ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সঙ্গে আজকের বাংলাদেশ বা তৎকালীন বঙ্গের কোন সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল কী? যদি সম্পর্ক তৈরি হয়ে থাকে, তবে তা কেমন ছিল! বন্ধুত্ব নাকি বৈরী!

এ প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে ফিরে যেতে হবে সেই সময়ে। যখন ভারতবর্ষের নাম ছিল আর্য্যাবর্ত্ত। অনেকগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাজ্য এবং প্রদেশে বিভক্ত ছিল আর্য্যাবর্ত্ত। কারও কারও মতে ১৬ টি রাজ্য ছিল আর্য্যাবর্ত্তে। প্রদেশ ছিল আরও অনেক বেশি। আবার কোন কোন ঐতিহাসিক রাজ্য ও প্রদেশের সংখ্যা আরও বেশি ছিল বলে মনে করেন। রাজ্য ও প্রদেশের সবগুলো স্বাধীন নৃপতি দ্বারা পরিচালিত হতো না। সামন্ত রাজ্য ছিল কয়েকটি। আয়তনে সবচেয়ে বড় রাজ্য ছিল মগধ। যার সম্রাট ছিলেন জরাসন্ধ। আর্য্যাবর্ত্তের সর্বশ্রেষ্ঠ শক্তিশালী নৃপতি হিসেবে জরাসন্ধের উপাধি ছিল রাজচক্রবর্তী।
ওই সময়ে বৃহৎ বঙ্গেও কয়েকটি ক্ষুদ্র রাজ্য ছিল। যার প্রায় সবগুলোর রাজা-মহারাজাই শ্রীকৃষ্ণের ঘোরতর বিরোধী ছিলেন। দ্বাপরযুগের অবতার হিসাবে কৃষ্ণকে তারা প্রায় কেউই মেনে নিতে পারছিলেন না। এরমধ্যে পৌন্ড্র নামক রাজ্যের রাজা বাসুদেব ছিলেন কৃষ্ণের ঘোরতর বিরোধী।  আজকের রাজশাহী-রংপুরসহ কয়েকটি জেলা নিয়ে ছিল পৌন্ড্র। বাসুদেবও যথেষ্ট শক্তি এবং প্রতাপশালী ছিলেন। বিরোধিতার এক পর্যায়ে বাসুদেব নিজেই নিজেকে ‘শঙ্খচক্রগদাপদ্মধারী’ হিসেবে দাবি করেন। বঙ্গের আরেক রাজ্য প্রাগজ্যোতিষপুরের রাজা ভগদত্ত নিজেকে ভগবান দাবি করেন। একইভাবে রাজ্য চেদির রাজা শিশুপালও কৃষ্ণের বিরোধী ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।
বঙ্গের আরও কয়েকজন রাজা কৃষ্ণ বিদ্বেষী ছিলেন। মহাপুরুষ শ্রীকৃষ্ণ তাদের সকলকেই পরাভূত করে প্রমান করেছিলেন, তিনিই কেবল সত্য।
বঙ্গের কয়েকজন রাজার সঙ্গে শ্রীকৃষ্ণের বিরোধ ও সংঘাত যেমন ঐতিহাসিক সত্য। তেমনি প্রতিটি যুদ্ধ ও রাজ্য জয়ের পরে সাধারণ প্রজাদের তিনি অর্থাৎ ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বুকে টেনে নিয়েছিলেন, এটিও চিরসত্য। কারণ তাঁর আবির্ভাবই তো হয়েছিল দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনের জন্য। আর সে সুবাদে বঙ্গের মাটিতে শ্রীকৃষ্ণের পবিত্র পদধূলি পরার বিষয়টি অনেকটাই নিশ্চিত।
পরমপিতা হিসেবে যুগে যুগে পুরুষোত্তমরা এই মাটির ধরায় আসেন এবং নানামুখী প্রতিকূলতার মাঝেও নিজেদের প্রতিষ্ঠা করেন, শ্রীকৃষ্ণের এসব যুদ্ধ সেটাই প্রমান করে।
কুরুক্ষেত্র ছাড়াও শ্রীকৃষ্ণ বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ধর্মযুদ্ধে অংশ নিয়ে সত্য প্রতিষ্ঠিত করেছেন, এমন এক-দু’টি যুদ্ধের বিস্তারিত বিবরণ আগামীতে তুলে ধরার আগ্রহ রইল।
সকলকে শুভ জন্মাষ্টমীর শুভেচ্ছা। –শংকর লাল। ভিজিট করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.