মসজিদ বিস্ফোরণে ২১ জন নিহত।। এটা দূর্ঘটনা নাকি নাশকতা

মসজিদ বিস্ফোরণে ২১ জন নিহত।। এটা দূর্ঘটনা নাকি নাশকতা

জাতীয় খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ডেস্ক।। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা অঞ্চলের পশ্চিম অংশের বায়তুস সালাত জামে মসজিদে এক ভয়াবহ বিস্ফোরণে কমপক্ষে ২১ জন ধর্মপ্রাণ পুড়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে। সরকার প্রতিটি পরিবারকে ২০,০০০ টাকা এবং নিহতের দাফনের ও চিকিৎসাধীনদের জন্য ১০.০০০ টাকা অনুদান দিয়েছে। আরও ১৬ জনের অবস্থা আশংকাজনক। নিহতের পরিবারের দাবি অনুযায়ী ময়নাতদন্ত না করে লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এটি দুর্ঘটনা বা নাশকতা; তদন্তের পরে বিষয়টি জানা যাবে বলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন।

মসজিদ কমিটির নেতৃবৃন্দ ও মুসল্লিরা দাবি করেছেন যে মসজিদের সামনের পাশের তিতাস গ্যাস লাইনটি লিক হয়ে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে গ্যাস বেরুছিল। মসজিদ কমিটির সভাপতি আবদুল গফুর দাবি করেছেন, আট থেকে নয় দিন ধরে মসজিদের গেটের সামনে থেকে বুদবুদ করে গ্যাস বেরিয়ে আসছিল। তিতের লোক এবং ঠিকাদারকে এটি মেরামত করার জন্য মৌখিকভাবে অনুরোধ করা হয়েছিল। তারা ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করে। তিনি টাকা জোগাড় করতে পারেননি এবং গ্যাসের ত্রুটি মেরামত করা সম্ভব হয়নি। তা থেকে বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় মসজিদের ছয়টি এসি (শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র) এক সাথে প্রচণ্ড শব্দে বিস্ফোরিত হয়েছিল। মসজিদের ভিতরে আগুন লাগলে ৪০ জন মুসল্লি পুড়ে যায়।

মসজিদ বিস্ফোরণে ২১ জন নিহত।। এটা দূর্ঘটনা নাকি নাশকতা

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স, তিতাস গ্যাস, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও মসজিদ কমিটি পৃথক কমিটি গঠন করেছে। সেই ভয়াবহ বিস্ফোরণের আসল রহস্য উদঘাটন করতে ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। পুলিশ ব্যুরো অফ তদন্ত পিবিআই, সিআইডির ফরেনসিক বিভাগ, পুলিশ, জেলা প্রশাসন, বিস্ফোরক বিভাগ এবং অন্যান্যরা ঘটনাস্থল থেকে প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন।

রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সংসদের স্পিকার ড: শিরীন শারমিন চৌধুরী, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ গভীর শোক ও সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন। তারা মৃতদের আত্মার শান্তি কামনা এবং রোগীদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পোড়া আক্রান্তদের যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন।–গাফফার খান চৌধুরী / মোঃ খলিলুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.