সমস্ত বিমানবন্দরে মদের দোকান বন্ধ হোক। চালু হোক গোমূত্র বিক্রি।

ফিচার
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিষ্ঠা ভরে, খালি পেটে। সকালে চার ছিপি। রাতেও চার। প্রতিদিন এমন সময় বেঁধে, নিয়ম করে খাঁটি দেশি গোমূত্র পান করলে নাকি শরীরে বাসা বাঁধবে না করোনাভাইরাসসহ যে কোনও রোগ! দেশি গোমাতার মূত্রের এই মাহাত্ম্য প্রচারেই শনিবার খাস দিল্লির বুকে ‘গোমূত্র পার্টি’র আয়োজন করেছিল অখিল ভারত হিন্দু মহাসভা। পার্টিই বটে! কল লাগানো স্টিলের পাত্র। গায়ে লেখা ‘পবিত্র গোমূত্র প্রসাদম’। অর্থাৎ, পবিত্র প্রসাদী গোমূত্র। পাশে উপুড় করে রাখা মাটির ভাঁড়। এক জন করে আসছেন আর ভাঁড় ভরে চুমুক দিচ্ছেন সেই প্রসাদী তরলে। অনেকের আশ যেন আর মেটে না! ভাঁড় খালি হতেই হাঁক পাড়ছেন, আউর লাও! মাঝেমধ্যে খোঁজ পড়ছে পায়েসের বালতি হাতে ঘুরে বেড়ানো রাজেশ কুমারের। বললেন, ‘‘রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ানো পঞ্চগব্য মেশানো আছে এই পায়েসে। গোবর, গোমূত্র ইত্যাদি।
করোনাভাইরাসের সাধ্য কী যে কাছে ঘেঁষে!’’ কথা শেষ না-হতেই পাশ থেকে হাত বাড়ালেন ‘ভক্ত’। অনুরোধ এল, ‘‘আর একটু।’’ চা-কফি নেই। কড়া নেশার সামগ্রী নেই। তবু কথা কাটাকাটি চোখে পড়ল এই পার্টিতেও। সবে মাটির ভাঁড়ে গোমূত্রে ভরে ‘চিয়ার্স’ বলেছিলেন আমন বাজপেয়ী। কড়া ধমক দিলেন পাশে দাঁড়ানো ব্যোমব্যোম ঠাকুর। বললেন, ‘‘চিয়ার্স আবার কী? এ আমাদের সংস্কৃতির অঙ্গ নাকি?’’ ভাঁড়ে ভাঁড় মেলানো বন্ধ হল। কিন্তু তা বলে পানে টান পড়ার লক্ষণ নেই।
আলিগড় থেকে আসা এইচ এস মুটো খান পার্টিতে যোগ দিতেই ফের একদফা হইচই। তাঁর ঠোঁটে ভাঁড় ধরে চক্রপাণির দাবি, গোমাতার মাহাত্ম্যে মজেছেন মুসলিমও। দুই সম্প্রদায়ের সম্প্রীতির এই তো আসল ছবি।
হাতের কাছে এমন মহৌষধ থাকতে করোনার ত্রাসে বেঙ্গালুরুতে আরএসএস-এর সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারকদের বৈঠক বাতিল করতে হল কেন? সেই প্রশ্নের উত্তর অবশ্য মেলেনি।
যেমন উত্তর নেই গোমূত্রে না-মজে কেন তা হলে সাধারণ মানুষকে সাবধান হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে মোদী সরকার? 
চক্রপাণির দাবি, ‘‘স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কাছে আমাদের আর্জি, সমস্ত বিমানবন্দরে মদের দোকান বন্ধ হোক। চালু হোক গোমূত্র বিক্রি। বাইরে থেকে আসা সকলকে সেখানে গোবর মাখিয়ে শুদ্ধ করা হোক আগে।’’সুত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.