সাম্প্রদায়িক সংঘাতের উসকানীদাতা হেফাজতি মামুনুল হক ও সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমনকারীদের শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন

জাতীয় খবর
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সাম্প্রদায়িক সংঘাতের উসকানীদাতা হেফাজতি মামুনুল হক ও সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমনকারীদের শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে সংখ্যালঘু পরিবারের উপর আক্রমন করে বাড়ি ভংচুর, লুটপাট ও নারীদের উপর অত্যাচারের প্রতিবাদে, সাম্প্রদায়িক সংঘাতের উসকানীদাতা হেফাজতি মামুনুল হক ও সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমনকারীদের শাস্তির দাবিতে আজ বিকাল ৫টায় বঙ্গবন্ধু মুর‌্যালে সামনে যশোর জেলা একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি এক মানব বন্ধনের আয়োজন করে।

জেলা নির্মুল কমিটির সভাপতি হারুন অর রশীদের সঞ্চালনায় এই মানব বন্ধনে ক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন দোদুল, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের সাধারন সম্পাদক ফিরোজ ইকবাল, উদীচী সভাপতি ও শ্রমিক নেতা মাহাবুব মজনু, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক এড. মাহমুদ হাসান বুলু, মহিলা পরিষদ নেতা এড. কামরুন নাহার কনা, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজী আহম্মদ সাঈদ বুলবুল, পূজা উদযাপন পরিষদের জেলা নেতা সম্ভু সাহা, মৃনাল কান্তি দে, ওয়ার্কার্স পাটির নেতা অনুপ কুমার পিন্টু, বিবর্তনের সভাপতি নওরোজ আলম খান চপল, আই ডি ইর জেলা সাধারন সম্পাদক প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম, যুব মৈত্রীর সুকান্ত দাস, ছাত্র মৈত্রী নেতা শ্যামল শর্মা প্রমুখ। নির্মূল কমিটির সাধারন সম্পাদক সাজেদ রহমান বকুল সমাপনী বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, হেফাজতি নেতা মামুনুল হক ১৫ তারিখে দিরায়ে এক ধর্মসভায় ভারতে মুসলিম নির্যাতনের কাল্পনিক কাহিনী বলে এদেশের হিন্দুদের দেশছাড়া করতে উদ্বুদ্ধ করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ১৭ তারিখ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিনে হেফাজতি দস্যুরা সংখ্যালঘু গ্রামে আক্রমন করে ভাংচুর লুটপাট ও নারীদের নিগ্রহ করে। এই ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন সময়মতো পদক্ষেপ না নেয়ায় এই ক্ষতি হয়। অবিলম্বে সাম্প্রদায়িক উস্কানী দাতা মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হোক এবং হামলাকারীদের কঠিন শাস্তি দেয়া হোক। এই অপতৎপরতা স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তিকে নস্যাৎ করার ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছু না। সরকার হেফাজতিদের কাছে নতজানু হলে দেশের স্বাধিনতা বিপন্ন হবে।