এবার গ্রেফতার হলেন সুশান্তের কর্মচারী দীপেশ সবন্ত, :‘অভিনন্দন ভারত, একটি মধ্যবিত্ত পরিবারকে ধ্বংস করেছো’ রিয়ার বাবা

বিনোদন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ডেস্ক।। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় এবার গ্রেফতার হলেন তার কর্মচারী দীপেশ সবন্ত। মাদক পাচার এবং সরবরাহের অভিযোগে শনিবার রাতে দীপেশকে গ্রেপ্তার করে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। সুশান্ত মৃত্যু রহস্যে অন্যতম প্রত্যক্ষদর্শী হলেন তিনি। এর আগে শুক্রবার রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী ও সুশান্তের বাড়ির ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এনসিবি সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাতেই সৌভিক এবং স্যামুয়েলের পাশাপাশি জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় দীপেশকেও। তাদের তিনজনকে মুখোমুখি বসিয়েও জেরা করা হয় বলে এনসিবি সূত্রে খবর। সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে ওই কেন্দ্রীয় সংস্থা জানিয়েছে, তাদের তিনজনের বিরুদ্ধেই উপযুক্ত প্রমাণ রয়েছে। রবিবার দীপেশকে আদালতে পেশ করা হবে।

একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, স্যামুয়েল ইতোমধ্যেই জেরায় এনসিবি-কে জানিয়েছেন, গত বছর সেপ্টেম্বর থেকে এ বছরের মার্চ পর্যন্ত সুশান্তকে গাঁজার জোগান দিতেন তিনি। সৌভিকের বন্ধু সূর্যদীপ নামে এক মাদক পাচারকারীর কাছ থেকেই গাঁজা সংগ্রহ করতেন তিনি। সেই গাঁজা স্যামুয়েল পৌঁছে দিতেন কখনও সুশান্তের ফ্ল্যাটে, আবার কখনও বা রিয়ার বাড়িতে।

 

 

অপরদিকে, সুশান্তের মৃত্যুর মামলায় মাদককাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ছেলে সৌভিক চক্রবর্তীর গ্রেফতার হওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রিয়া ও সৌভিক চক্রবর্তীর বাবা অবসরপ্রাপ্ত লেফট্যানেন্ট কর্নেল ইন্দ্রজিত চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, ‘অভিনন্দন ভারত, আমার ছেলেকে গ্রেফতার করেছেন। পরের লাইনে রয়েছে আমার মেয়ে। আমি জানি না, তারপরে কে রয়েছে? একটা মধ্যবিত্ত পরিবারকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। তবে ন্যায়বিচারের জন্য সবকিছুই ন্যায়সঙ্গত। জয় হিন্দ।’

প্রসঙ্গত, মাদক কাণ্ডে শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করা হয় রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তীকে। ১৯৯০-এর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে সৌমিক ও মিরান্ডাকে। গ্রেফতারের আগে তল্লাশি চালানো হয়েছে সৌমিকের সান্তাক্রুজ এলাকা বাড়িতে এবং মিরান্ডার আন্ধেরির বাড়িতে। সৌমিক, মিরান্ডা ছাড়াও গ্রেফতার করা হয়েছে সুশান্তের রাঁধুনি দীপেশ সাওয়ান্তকেও।

Leave a Reply

Your email address will not be published.